‘আক্রোশ’ ভোটিং হল না

Please follow and like us:
0

রোজনামচা প্রতিবেদন  – মমতা-বিরোধী রাজনীতির মূল কথাই হলো, যারা তৃণমূলে আসে, তারা নাকি দমবন্ধ হাঁসফাঁস অবস্থায় থাকে। নিজের আখের গুছিয়ে নেওয়ার পর তারা জানায় যে আর পোষাচ্ছে না। তাদের হাতাশা ও আক্রোশ এক সময় ফুটে ওঠে কথা বার্তায় এবং সময় ও সুযোগ বুঝে ফেটেও যায়। মমতা-বিরোধী রাজনীতি মূল কথা, দলে একটাই পোস্ট, বাকি সব ল্যাম্পপোস্ট। সুতরাং হুঁ হুঁ বাবা, সুযোগ পেলেই ভেঙে যাবে তৃণমূল।সবাই এখানে আক্রোশ নিয়ে বসে থাকে, সুতরাং ক্রশ ভোটিং হতেই পারে।

কলকাতা পুরসভায় আজ ববি হাকিমের জয়ের আগে নাকি মিডিয়ার একটা অংশের এমন একটা ধারণা ছিল যে, ক্রশ ভোটিং হবেই এবার। তৃণমূলের ১২২ ভোটে বিজেপির ভাগ বা কামড় বসবেই।

কার্যত কোনও নাটক হলো না। অসুস্থ এক কাউন্সিলারের ভোট বাদ দিয়ে যা পাওয়ার তাই পেলেন ববি। মীনা দেবীর যে হাতের পাঁচ পাওয়ার কথা, তাই পেলেন। বাম কংগ্রেসের অনুপস্থিত থাকার কথা, তাই হলো। কোনও ক্রশ ভোট হলো না। কারো তথাকথিত আক্রোশ প্রকাশ পেল না।

ফিরহাদ মেয়র নির্বাচিত হয়ে বললেন, ধর্ম নয়, কর্মের জন্যে মুখ্যমন্ত্রী এই দায়িত্ব আমায় দিয়েছেন। তৃণমূল কংগ্রেস যাঁরা করেন, তাঁদের কাছে কর্মই আগে। আমি নিষ্ঠার সঙ্গে এই দায়িত্ব পালন করার চেষ্টা করব।”

নব নির্বাচিত মাননীয় মেয়র বলেছেন, কলকাতাকে আরো সবুজ করার চেষ্টা করবেন।

মমতা-বিরোধী রাজনীতি যারা করেন, তাদের হতাশ করে ‘সবুজ’ করার কথাই বলেছেন মেয়র – নীল বলেননি!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *